1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. dbcjournal24@gmail.com : ডিবিসি জার্নাল ২৪ : ডিবিসি জার্নাল ২৪
রবিবার, ০১ অগাস্ট ২০২১, ০২:১২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
দুর্গাপুরে মানব পাচার দিবস উপলক্ষে খাদ্য ও মাস্ক বিতরণ রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সেক্রেটারী পরিচয় দিয়ে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার দুর্গাপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বিদ্যুৎ চুরির অভিযোগে থানায় জিডি, সরঞ্জাম জব্দ করেছে পুলিশ রাজশাহী মেডিকেলে করোনায় আরও ১৪ জনের মৃত্যু বিশ্বে করোনায় মৃত্যুতে বাংলাদেশের অবস্থান দশম বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন সাংবাদিক গ্রেপ্তারে আইনে বিচ্যুতি পেলে ব্যবস্থা: পুলিশ সদরদপ্তর দু্র্গাপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অক্সিজেন কনসেনট্রেটর উপহার দিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আ.লীগ সরকার করোনা সঙ্কটেও মানুষের স্বাস্থ্যসেবা উন্নয়নে বদ্ধপরিকর- ডাঃ মনসুর রহমান এমপি ঢাকার কদমতলী থানা এলাকায় অপহরন ও হত্যার ঘটনার রহস্য উন্মোচন, গ্রেফতার ২

Categories

ধানের ভাল দামে খুশি নওগাঁর কৃষকরা

  • আপডেট করা হয়েছে শুক্রবার, ১৫ মে, ২০২০
  • ১৮৪ বার পড়া হয়েছে

নওগাঁ সংবাদদাতা: নওগাঁয় সকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলছে ইরি-বোরো ধান কাটা মাড়াইয়ের কাজ। ইতি মধ্যে জেলায় ১৮ ভাগ ধান কাটা মাড়াই শেষ। কাটা মাড়াইয়ের শুরুতেই কৃষকরা বাজারে ধান ভালো দামে বিক্রি করতে পেরে খুশি। এদিকে ধান কাটা মাড়াই শুরু হওয়াতে এ প্রভাব পড়েছে নওগাঁর চালের বাজারে। ফলে সকল ধরণের চাল প্রতি কেজিতে এক সপ্তাহ ব্যবধানে ৪ টাকা থেকে ৫ টাকা কমে কেনা বেচা হচ্ছে।

জেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, আবহাওয়া অনুকূলে থাকা, স্বল্প মূল্য সার, তেল ও কৃষিতে সরকারের ভূর্তিকী দেওয়ায় নওগাঁয় ১ লাখ ৮২ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ হয়েছে। লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে আড়াই হাজার হেক্টর জমিতে ধান চাষ করা হয়েছে। চলতি মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং জমিতে রোগবালাই দেখা না দেওয়ায় বোরো ধানের বাম্পার ফল হয়েছে।

বিভিন্ন ধানের হাট ঘুরে দেখা গেছে, গত বছরের তুলনায় প্রায় ১শ’ টাকা বেশি দরে প্রতি মণ ধান কেনা বেচা হচ্ছে। মোটা জাতের ধান ৬শ’ টাকা থেকে ৭শ’ টাকা এবং চিকন জাতের ৭শ’ টাকা থেকে সাড়ে ৯শ’ টাকা পর্যন্ত প্রতি মণ কেনা বেচা হচ্ছে।

জেলার কয়েক জন কৃষক জানান, প্রতি বিঘা ধান লাগানো থেকে মাড়াই পর্যন্ত প্রায় ৭ থেকে ৯ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। প্রতি বিঘায় চিকন জাতের ধান ২২ থেকে ২৫ মণ এবং মোটা জাতের ধান ২৫ থেকে ২৮ মন ধান উৎপাদন হচ্ছে। যা গত বছরের তুলনায় প্রতি বিঘায় ধান উৎপাদন বেশি। এসব ধান বাজারে বেশি দামে বিক্রি করতে পেরে খুশি। এতে তারা কিছুটা লাভবান হচ্ছে বলে জানান তারা।

এদিকে নতুন ধান বাজারের আসতেই এর প্রভাব পড়েছে নওগাঁর চালের বাজারে। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে সকল ধরনের প্রতি কেজি চাল ৪ টাকা থেকে ৫ টাকা কমে কেনা বেচা হচ্ছে।

নওগাঁ পৌর ক্ষুদ্র চাল ব্যবসায়ীরা জানান, বর্তমানে খুচরা বাজারে চিনি আতব ৮৫ টাকা থেকে ৯০ টাকা, বাসমতি ৬০ টাকা থেকে ৬৫ টাকা, সম্পা কাটারী ৫৮ টাকা থেকে ৬০ টাকা, পাইজাম ৫০ টাকা থেকে ৫২ টাকা, জিরাশাইল ৪৮ টাকা থেকে ৫০ টাকা, খাটো জিরা ৪৫ টাকা থেকে ৪৮ টাকা, রঞ্জিত ৪০ টাকা থেকে ৪২ টাকা, বিআর আটাশ ৪৪ টাকা থেকে ৪৫ টাকা এবং স্বর্ণা ৩৮ টাকা থেকে ৪০ টাকায় কেনা বেচা হচ্ছে।

নওগাঁয় পৌর ক্ষুদ্র চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক উত্তর কুমার সরকার জানান, নতুন ধান বাজারে আসায় চালের দাম কমেছে। বাজারে বর্তমানে তেমন কেনা-বেচা নেই। জেলায় পুরোদমে ধান কাটা-মাড়াই শুরু হলে চালের বাজার আরো কিছুটা কমবে বলে জানান তিনি।

জেলা চাল কল মালিক গ্রুপের সভাপতি আলহাজ্ব রফিকুল ইসলাম রফিক জানান, সরকারী ভাবে চলতি বোরো মৌসুমে ৩৬ টাকা দরে ১০ লাখ মেট্রিকটন সিদ্ধ চাল, ৩৫ টাকা দরে দেড় লাখ মেট্রিকটন আতপ চাল মিলারদের কাছ থেকে এবং ২৬ টাকা দরে ৮ লাখ মেট্রিকটন কৃষকদের কাছ থেকে ধান ক্রয় কার্যক্রম শুরু হয়েছে। অপর দিকে নওগাঁর প্রায় ১২শ চাতাল মালিকরা ধান কেনা শুরু করায় কৃষকরা তাদের উৎপাদিত ধানের নায্য মূল্য পাচ্ছেন।

সরকার বেশি করে কৃষকদের কাছে থেকে ধান ও মিলারদের কাছে থেকে চাল কেনায় বাজারে ধানের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমান ধানের বাজার যদি অব্যাহত থাকে তাহলে আগামিতে কৃষকরা ধান চাষে আগ্রহ হবেন বলে মনে করেন তিনি।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন