1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. dbcjournal24@gmail.com : ডিবিসি জার্নাল ২৪ : ডিবিসি জার্নাল ২৪
শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভূয়া পুলিশ নিয়োগের মামলায় বিভিন্ন মেয়াদে ১০ জনের সাঁজা দুর্গাপুর পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন চান কৃষকলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম আজ বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস রাজশাহীর ক্রীড়াঙ্গনকে আরও সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে- রাসিক মেয়র লিটন পৃথিবীর গতি বাড়ছে, ২৪ ঘণ্টার আগেই শেষ হচ্ছে দিন! তথ্য বিজ্ঞানীদের ৫০ যাত্রী নিয়ে ইন্দোনেশিয়ার বিমান নিখোঁজ রাজশাহীতে দুর্ঘটনার কবলে প্রশিক্ষণ বিমান ধর্ষক দিহানের বাড়ি রাজশাহীর দুর্গাপুরে ! চারঘাটে আধিপত্য বিস্তার করতে মাইকিং করে সংঘর্ষে নিহত ১, আটক ২ বাগমারায় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সম্পাদকের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা

পৌরসভা নির্বাচন: আওয়ামী লীগের ৬১ মেয়র প্রার্থী মনোনয়ন

  • আপডেট করা হয়েছে শনিবার, ১৯ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৪৮ বার পড়া হয়েছে

ডিবিসি নিউজ ডেস্ক: দ্বিতীয় ধাপের ৬১ পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মেয়র প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ। গতকাল বিকালে দলের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠকে এ প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সময় স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য কাজী জাফর উল্লাহ, ড. আবদুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ প্রমুখ। বৈঠক শেষে দলের দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে চূড়ান্ত প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হয়।

এবারের ৬১ পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশীর মোট সংখ্যা ছিল ৩১২ জন। ১৩ ডিসেম্বর শেষ হওয়া দলীয় মনোনয়ন ফরম বিতরণ কার্যক্রমে এই প্রার্থীরা ফরম সংগ্রহ ও জমা দিয়েছেন। ৮ ডিসেম্বর থেকে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলীয় মনোনয়নের আবেদনপত্র সংগ্রহ ও জমার ছয় দিনের এ কার্যক্রম শুরু হয়েছিল।

১৬ জানুয়ারি দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন যারা তারা হলেন- চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে মোক্তাদের মাওলা সেলিম, সিরাজগঞ্জের সদরে সৈয়দ আবদুর রউফ মুক্তা, কাজীপুরে আবদুল হান্নান তালুকদার, রায়গঞ্জে আবদুল্লাহ আল পাঠান, উল্লাপাড়ায় এস এম নজরুল ইসলাম, বেলকুচিতে বেগম আশানুর বিশ্বাস, নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে লতিফুর রহমান রতন ও কেন্দুয়ায় আসাদুল হক ভূঞা, কুষ্টিয়ার সদরে আনোয়ার আলী, ভেড়ামারায় শামীমুল ইসলাম ছানা, মিরপুরে এনামুল হক ও কুমারখালীতে সামছুজ্জামান অরুন, মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় সিপার উদ্দিন আহমেদ, কমলগঞ্জে জুয়েল আহমেদ, নারায়ণগঞ্জের তারাবোতে হাছিনা গাজী, শরীয়তপুরের সদরে পারভেজ রহমান, কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে ফরহাদ হোসেন ধলু, গাইবান্ধার সদরে শাহ মাসুদ জাহাঙ্গীর কবির ও সুন্দরগঞ্জে আবদুল্লা আল মামুন, দিনাজপুরের সদরে রাশেদ পারভেজ, বিরামপুরে আক্কাস আলী ও বীরগঞ্জে নুর ইসলাম, মাগুরা সদরে খুরশীদ হায়দার টুটুল, ঢাকার সাভারে হাজী মো. আবদুল গনি, নওগাঁর নজিপুরে রেজাউল কবির চৌধুরী, পাবনার ভাঙ্গুড়ায় গোলাম হাসনাইন, ঈশ্বরদীতে ইছাহাক আলী মালিথা, ফরিদপুরে খন্দকার মো. কামরুজ্জামান মাজেদ, সাঁথিয়ায় মাহবুবুল আলম ও সুজানগরে রেজাউল করিম, রাজশাহীর কাঁকনহাটে এ কে এম আতাউর রহমান খান, আড়ানীতে শহীদুজ্জামান ও ভবানীগঞ্জে আবদুল মালেক, সুনামগঞ্জের সদরে নাদের বখত, ছাতকে আবুল কালাম চৌধুরী ও জগন্নাথপুরে মিজানুর রশিদ ভুইয়া, ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে সেলিম রেজা,  ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়ায় গোলাম কিবরিয়া, মুক্তাগাছায় বিল্লাল হোসেন সরকার, নাটোরের নলডাঙ্গায় মনিরুজ্জামান মনির, গুরুদাসপুরে শাহনেওয়াজ আলী ও গোপালপুরে কাজী আসিয়া জয়নুল, বগুড়ার সারিয়াকান্দিতে আলমগীর শাহী,  শেরপুরে আবদুস সাত্তার, সান্তাহারে আশরাফুল ইসলাম মন্টু,  পিরোজপুরের সদরে হাবিবুর রহমান মালেক, মেহেরপুরের গাংনীতে আহম্মেদ আলী, ঝিনাইদহের শৈলকূপায় কাজী আশরাফুল আজম, খাগড়াছড়ির সদরে নির্মলেন্দু চৌধুরী, বান্দরবানের লামায় জহিরুল ইসলাম, নীলফামারীর সৈয়দপুরে রাফিকা আকতার জাহান, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে খন্দকার মনজুরুল ইসলাম তপন, কুমিল্লার চান্দিনায় শওকত হোসেন ভুঁইয়া, ফেনীর দাগনভূঞায় ওমর ফারুক খান, কিশোরগঞ্জের সদরে পারভেজ মিয়া, কুলিয়ারচরে সৈয়দ হাসান সারওয়ার মহসিন, নরসিংদীর মনোহরদীতে  মোহাম্মদ আমিনুর রশিদ, নোয়াখালীর বসুরহাটে আবদুল কাদের, বাগেরহাটের মোংলা পোর্টে শেখ আবদুর রহমান, হবিগঞ্জের মাধবপুরে শ্রীধাম দাশগুপ্ত, নবীগঞ্জে গোলাম রসুল রাহেল চৌধুরী।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী দ্বিতীয় ধাপে এই ৬১টি পৌরসভায় ২০ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। ১৬ জানুয়ারি হবে ভোট গ্রহণ। দ্বিতীয় দফায় ৬১টি পৌরসভার মধ্যে ২৯টিতে ইভিএমে এবং বাকি ৩২টি পৌরসভায় ব্যালটে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

তৃতীয় দফায় ৬৪ পৌরসভায় মনোনয়ন বিক্রি : তৃতীয় দফায় নির্বাচন কমিশন ঘোষিত আসন্ন ৬৪টি পৌরসভায় দলের মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে ২০ ডিসেম্বর থেকে মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু করবে আওয়ামী লীগ। ২০ ডিসেম্বর থেকে ২৪ ডিসেম্বর বিকাল ৫টা পর্যন্ত ধানমন্ডির আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম বিক্রি ও জমা গ্রহণ করা হবে।

সংশ্লিষ্ট জেলা, উপজেলা ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী ও সাধারণ সম্পাদকদের স্বাক্ষরিত সংগঠনের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী রেজুলেশনে প্রস্তাবিত প্রার্থীরাই শুধু মনোনয়ন ফরম ক্রয় করতে পারবেন। যথাযথ স্বাস্থ্য সুরক্ষাবিধি মেনে এবং কোনো ধরনের লোকসমাগম ছাড়া প্রার্থী নিজে অথবা প্রার্থীর একজন যোগ্য প্রতিনিধির মাধ্যমে আবেদনপত্র সংগ্রহ ও জমা প্রদান করতে হবে। আবেদনপত্র সংগ্রহের সময় প্রার্থীকে অবশ্যই প্রার্থীর জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি সঙ্গে আনতে হবে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

আরো সংবাদ পড়ুন