1. brigidahong@tekisto.com : anthonyf69 :
  2. mieshaalbertsoncqb@yahoo.com : delorismoffitt :
  3. gkkio56@morozfs.store : doriereddick :
  4. : admin :
  5. kleplomizujobq@web.de : humbertoabdullah :
  6. sjkwnvym@oonmail.com : joellennnx :
  7. zpmylwix@oonmail.com : lela88146910269 :
  8. gertrudejulie@corebux.com : modestaslapoffsk :
  9. cristinamcmaster6222@1secmail.com : renetrotter53 :
  10. mild@dewewi.com : sheldon37s :
নাটোর পবিসের গাফিলতিতে মাশুল গুনছেন গ্রাহকরা - ডিবিসি জার্নাল২৪
বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৮:২৯ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ঈদের পরদিনই পরিচ্ছন্ন নগরী পেলেন রাজশাহীবাসী রাজশাহীতে ঈদের প্রধান জামাত সকাল সাড়ে ৭টায় উত্তরাঞ্চলে বাড়ছে যাত্রী গাড়ির চাপ থাকলেও নেই যানজট বিএনপি-জামায়াত বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করার চেষ্টা চালাচ্ছে- প্রতিমন্ত্রী আব্দুল ওয়াদুদ বাঘায় সাতশ’১০ বোতল ফেনসিডিল উদ্ধার,নৌকা জব্দ বেলকুচিতে সংবাদ প্রকাশের জের ধরে সাংবাদিক সোহরাওয়ার্দী কে প্রকাশ্যে হুম রাজশাহীর দুর্গাপুরে দৈনিক যায়যায়দিনের ১৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন রাজশাহীর তিন উপজেলা সহ ১৯ উপজেলার চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহন ঘর পেয়ে বদলে গেছে মানুষের জীবনমান : শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস আজ 

N

নাটোর পবিসের গাফিলতিতে মাশুল গুনছেন গ্রাহকরা

  • আপডেট করা হয়েছে শুক্রবার, ১২ মে, ২০২৩
  • ৫১ বার পড়া হয়েছে

নিউজ ডেস্ক: রাজশাহীর পুঠিয়ায় বিদ্যুৎ অফিসের লোকজন ঘরে বসে ইচ্ছেমত বিল তৈরি করে গ্রাহকদের সরবরাহ করছেন। আবার অতিরিক্ত টাকা আদায় করতে কয়েকটি ধাপ সংযোজন করে দিচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে।

সাধারণ গ্রাহকরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলছেন, এটা দাপ্তরিক গাফলতি নয়, বরং সাধারন গ্রাহকের নিকট থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের একটি কৌশল! নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ এর অধিনে পুঠিয়া আঞ্চলিক দপ্তরের প্রতিনিয়ত এমন ঘটনা ঘটছে।

পুঠিয়া আঞ্চলিক দপ্তর সূত্রে জানা গেছে। উপজেলায় আবাসিক, বানিজ্যিক ও শিল্প মিলে মোট ৭৫ হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক রয়েছে। এদিকে বানিজ্যিক ও শিল্প গ্রাহকদের প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ নির্ধারিত ফ্লাট রেট করা আছে। আর আবাসিক মিটারে প্রথম ধাপে এক থেকে ৭৫ ইউনিট। প্রতি ইউনিট বিদ্যুৎ দর ৪.৮৫ টাকা।

দ্বিতীয় ধাপে ৮০ থেকে ২০০ ইউনিটের দর ৬.৬৩, তৃতীয় ধাপে ২০১ থেকে ৩০০ ইউনিটের দর ৬.৯৬, চতুর্থ ধাপে ৩০১ থেকে ৪০০ ইউনিটের দর ৭.৩৪ টাকা।

ধোপাপাড়া এলাকার বিদ্যুৎ গ্রাহক আরমান আলী বলেন, তার বাড়িতে প্রতিমাসে গড় বিল আসে ৪৫০-৫৫০ টাকার মধ্যে। অথচ এপ্রিল মাসে তার বিল এসেছে ১ হাজার ৭৩৪ টাকা।তিনি বলেন, দুই ধাপে স্লাব বাড়ালেই বিদ্যুতের বিল বেড়ে যায় দুই গুন।

অথচ অফিসের লোকজন যথা সময়ে মিটার যাচাই করে বিল তৈরি করলে অনেক গ্রাহক অতিরিক্ত অর্থ লোকসান থেকে রেহায় পাবেন।
উপজেলা সদর এলাকার কৃষ্ণপুর গ্রামের বিদ্যুৎ গ্রাহক মোহাম্মদ আলী বলেন, তার একটি বাণিজ্যিক সংযোগ রয়েছে।

গত এপ্রিলে তার বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়েছে ১৮০ ইউনিট। অথচ বিল এসেছে ৯৮০ ইউনিটের। বিষয়টি বিদ্যুৎ অফিসকে জানালে তারা পূর্ণতদন্ত করে ১৮০ ইউনিট নিশ্চিত করে আবার নতুন বিল দিয়েছেন।

তিনি বলেন, অফিসের লোকজন মিটার না দেখে ঘরে বসে তাদের ইচ্ছেমত বিল তৈরি করেন। আর তাদের কারণে গ্রাহকদের অতিরিক্ত টাকা দিতে হয়।

এ বিষয়ে নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম ইয়াকুব আলী শেখ বলেন, মাঝে মধ্যে দুই একটি বিল তৈরির সময় ভুল হতে পারে। সেটা অফিসের লোকজন কৌশল বা ইচ্ছে করে করেন না। তবে কোনো গ্রাহকদের সাথে এমন হয়ে থাকলে অফিসে আসলে আমরা সেটা তদন্ত করে ঠিক করে দেয়।

আরো সংবাদ পড়ুন

Designed by: ATOZ IT HOST