1. shahalom.socio@gmail.com : admin :
  2. dbcjournal24@gmail.com : ডিবিসি জার্নাল ২৪ : ডিবিসি জার্নাল ২৪
বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০২:২৭ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
সাবেক আইনমন্ত্রী আঃ মতিন খসরুর মৃত্যুতে ডাঃ মনসুর এমপির শোক রমজান মাস হবে দুইটি ২০৩০ সালে লকডাউন’ বাস্তবায়নের জন্য এসপিদের নির্দেশনা দিয়েছেন রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি পুঠিয়া পৌরসভার মেয়র মামুন খানের বিরুদ্ধে এক নার্সের ধর্ষণ মামলা দুর্গাপুরের জয়নগর ইউপি চেয়ারম্যান পদে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী শেখ ফিরোজ আহমদের মাক্স বিতরণ ডি-এইটের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ডাঃ মনসুর এমপি দুর্গাপুরে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে দোকানপাট খোলা রাখাই ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে জরিমানা রাজশাহীতে মিনু, বুলবুল সহ চার নেতার নামে পরোয়ানা দুর্গাপুরে মাক্স ব্যবহারের জন্য কঠোর ভূমিকায় উপজেলা প্রশাসন, সাধারন জনগনের মাঝে ইউএনওর ফ্রী মাক্স বিতরণ ভারতে একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্ত ৮৯১২৯, মৃত্যু ৭১৪

Recent Posts

Recent Posts

Recent Comments

    ক্ষমতার চেয়ার ও কারাগার পাশাপাশি- মহিলা কারাগার উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

    • আপডেট করা হয়েছে সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২০
    • ১৫৪ বার পড়া হয়েছে

    ডিবিসি নিউজ ডেস্ক:  ক্ষমতার চেয়ার ও কারাগার খুব পাশাপাশি থাকে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে  কেরানীগঞ্জে মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগার উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। এক-এগারোর তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় নিজের কারাবন্দী হওয়ার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, আমরা যারা রাজনীতি করি, আমাদের ক্ষমতার চেয়ার ও কারাগার খুব পাশাপাশি থাকে। যেটা খুবই স্বাভাবিক। ২০০৭-এ যেটা হয়েছে, ক্ষমতা ছাড়াও কিন্তু সবার আগে আমাকেই গ্রেফতার করা হয়েছিল। কাজেই সেটা আমরা জানি,  রাজনীতি করতে গেলে এটা হবে। বঙ্গবন্ধুর বারবার জেল খাটার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শুধু অপরাধ করলেই যে জেলে যায় তা না। এর মধ্যে ১৯৪৮ সালে যখন আমাদের মাতৃভাষা বাংলার অধিকার কেড়ে নিয়েছিল, তখন জাতির পিতা যে প্রতিবাদ করেছিলেন, সে প্রতিবাদের কারণে তিনি কারাগারে যেতে শুরু করেন। তারপর তাঁর জীবনের অনেকটা সময় কারাগারে কাটাতে হয়েছে অত্যন্ত মানবেতরভাবে।

    বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে কারাগারে যাওয়ার অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, কারাগারের সঙ্গে সবসময় আমাদের একটা সম্পর্ক আছে। ছোটবেলা থেকেই কারাগারে যাই, সেখানকার ভালো-মন্দ অনেক কিছু জানারও সুযোগ হয়। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের উদ্দেশ্য হলো কারাগারে শুধু অপরাধীদের বন্দী করে রাখা নয়, সঙ্গে সঙ্গে তাদের মন-মানসিকতা পরিবর্তন করা, তাদের কিছু প্রশিক্ষণ দেওয়া, তাদের কিছু শিক্ষা দেওয়া এবং যাতে তারা বের হয়ে ভবিষ্যতে একই অপরাধে জড়িয়ে না পড়ে সেদিকে লক্ষ্য রেখে আমরা কারাগারে এ ব্যবস্থা নিয়েছি। তিনি বলেন, কারাগারে যারা যাবে রাজবন্দী বাদে, যারা কোনো অপরাধ করে যায়, তাদের ট্রেনিং দিয়ে তারা যাতে যথাযথ মানুষ হয়, সেভাবে আমরা ছেড়ে দেব।

    জেলা কারাগারগুলোতে ভার্চুয়াল কোর্ট চালু করতে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে জানিয়ে সরকারপ্রধান বলেন, কেরানীগঞ্জের কারাগারেও ইতিমধ্যে কোর্ট রুম তৈরি করা হয়েছে। এভাবে জেলা কারাগারগুলোতেও কোর্ট রুম চালু করে ভার্চুয়াল কোর্ট যাতে হয় সেভাবে অনলাইনের মাধ্যমে মামলাও পরিচালিত হবে। সেভাবে আমরা একটা ব্যবস্থা নিচ্ছি। মামলার রায় বাংলায় ছাপাতে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, মামলার রায় ইংরেজিতে বের হয়, সেটাকে বাংলা করে ছাপানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। কেরানীগঞ্জে একটি এলপিজি স্টেশনও উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। এলপিজি স্টেশন থেকে কেন্দ্রীয় কারাগারে গ্যাস সংযোগ দেওয়া হয়। ফলে এখন থেকে আর কাঠ পুড়িয়ে রান্না করতে হবে না। এলপি গ্যাসে রান্না হবে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদফতর থেকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জ থেকে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী ভিডিও কনফারেন্সে বক্তব্য রাখেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।

    ২০টি ফায়ার স্টেশনসহ বেশ কয়েকটি প্রকল্পের উদ্বোধন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নতুন ২০টি ফায়ার স্টেশন এবং ৬টি আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিস উদ্বোধন করেছেন। তিনি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার কেরানীগঞ্জ কারা কমপ্লেক্স এলাকায় মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগার এবং কেরানীগঞ্জে একটি এলপিজি স্টেশনও উদ্বোধন করেন। প্রধানমন্ত্রী গতকাল দুপুরে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে এই প্রকল্পগুলোর উদ্বোধন করেন।

    ফায়ার সার্ভিসের আধুনিকায়নের চিত্র তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আগুনে জীবন ও সম্পদের অনেক ক্ষতি হয়। ‘আমাদের সরকার গঠনের আগে এত ফায়ার স্টেশন ছিল না। আমরা দেশের প্রতিটি উপজেলায় একটি করে ফায়ার স্টেশন নির্মাণ করার পরিকল্পনা হাতে নিয়েছি। পৃথক বার্ন ইনস্টিটিউট করেছি, মানুষের জীবন যেন নিরাপদ হয় সেভাবেই আমরা কাজ করে যাচ্ছি।’ যেসব ফায়ার স্টেশন উদ্বোধন হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- নওগাঁ জেলার রানীনগর, রাজশাহীর মোহনপুর, পাবনার সাঁথিয়া ও আটঘরিয়া, শরীয়তপুরের জাজিরা, বগুড়ার আদমদীঘি ও শাজাহানপুর, জয়পুরহাট, সাতক্ষীরার আশাশুনি ও কলারোয়া, বরিশালের হিজলা, পিরোজপুরের ইন্দুরকানি, মৌলভীবাজারের রাজনগর, নাটোর, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর, কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ, নেত্রকোনার বারহাট্টা, মানিকগঞ্জের হরিরামপুর এবং চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ।

    ফায়ার সার্ভিসকে আধুনিক প্রযুক্তিতে দক্ষ করা হচ্ছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ৯৯৯ নম্বরে ফোন দিলে যে কোনো ধরনের সমস্যার সমাধান পাওয়া যায়। সম্প্রতি হিমছড়িতে একদল শিক্ষার্থী হারিয়ে যাওয়ার পর ৯৯৯ নম্বরে কল দিলে পুলিশ বিমান বাহিনীর সাহায্য নিয়ে তাদের উদ্ধার করে। এ থেকে বোঝা যায় আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করলে যে কোনো বিপদ থেকে মানুষকে উদ্ধার করা যায়। আমরা ফায়ার সার্ভিসকে সেভাবে গড়ে তুলব।

    নতুন ৬টি আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের মাধ্যমে পাসপোর্ট সংক্রান্ত সেবা নাগরিকদের আরও কাছে চলে যাবে বলেও প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে উল্লেখ করেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশের ৬৪টি জেলায় ৭২টি পাসপোর্ট অফিস এবং ২৭টি ইমিগ্রেশন চেক পয়েন্ট রয়েছে।

    বিমানের ড্যাশ ৮-৪০০ ধ্রুবতারা উড়োজাহাজ উদ্বোধন : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিমানের নতুন একটি উড়োজাহাজ ড্যাশ ৮-৪০০ ধ্রুবতারার উদ্বোধন করেছেন।  গতকাল বেলা ১১টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিনি এই নতুন বিমানের উদ্বোধন করেন।

    এ সময় প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে আঞ্চলিক পর্যায়ে একটি সার্বিক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তুলতে চায়। তিনি বলেন, ‘আমরা সেসব বিমান ক্রয় করছি যেগুলো সব থেকে আধুনিক এবং উন্নতমানের। আর আজকে (গতকাল) যে বিমানটি উদ্বোধন করতে যাচ্ছি তার মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগের পাশাপাশি দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সঙ্গেও আমরা যোগাযোগ বৃদ্ধিতে সক্ষম হব।’

    বাংলাদেশের চমৎকার ভৌগোলিক অবস্থানের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যদি আমাদের আশপাশের দেশগুলোর সঙ্গে ব্যবসা-বাণিজ্য এবং যোগাযোগ বাড়াতে পারি তাহলে সব দিক থেকেই আমাদের উন্নতি হতে পারে। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা ইতিমধ্যে অনেক পদক্ষেপ নিয়েছি। যার অংশ হিসেবে এই নতুন উড়োজাহাজ ড্যাশ ৮-৪০০ এর উদ্বোধন করছি।’ নতুন বিমানটির নাম তিনি ধ্রুবতারা রেখেছেন এবং নতুন আনা বিমানগুলোর নামকরণ দেশের প্রকৃতি ও পরিবেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে তিনিই করেছেন, যে কাজে তাঁকে ছোট বোন শেখ রেহানা সহযোগিতা করেছেন বলেও প্রধানমন্ত্রী উল্লেখ করেন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- পালকি, অরুণ আলো, আকাশ প্রদীপ, রাঙ্গা প্রভাত, মেঘদূত, ময়ূরপঙ্খী, আকাশবীণা, হংস বলাকা, গাঙচিল, রাজ হংস, অচিন পাখি, সোনারতরী। ‘ধ্রুবতারা’ আমাদের দিকনির্দেশনা দেয় উল্লেখ করে সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমরা জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন করতে যাচ্ছি আর ২০২১ সালে আমাদের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপিত হবে। কাজেই এর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখেই ধ্রুবতারা নামটি পছন্দ করেছি। নামগুলোর পছন্দ করায় আমাকে সহযোগিতা করেছেন আমার ছোট বোন শেখ রেহানা।’ বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন। শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানে আরও বলেন, এখন বিমানবন্দরগুলোকে আরও উন্নত করা হচ্ছে, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তৃতীয় টার্মিনালও নির্মাণ হচ্ছে, কক্সবাজার বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক মানের করা হচ্ছে, সৈয়দপুর এবং সিলেট ওসমানী বিমানবন্দরকে আরও উন্নত করা হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘যখন কোনো দেশে আমাদের প্লেন নামে তখন  আমাদের প্লেনটি দেশের একটি বার্তা নিয়েই সেখানে যায়। সমগ্র দেশের পরিচয় ঘটে এর মাধ্যমে। আর জাতির পিতা বিমানের লোগো করা থেকে শুরু করে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস সৃষ্টি করে সে কাজের গোড়াপত্তন করে যান। বর্তমান সরকারের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় পুরনো জবুথবু অবস্থা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়ে বিমান বহরে এখন বিমানের সংখ্যা ১৯টি উন্নীত হয়েছে।

    জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করার আহ্বান : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার নীতি ও আদর্শ মেনে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের দায়িত্বশীলতার সঙ্গে কাজ করে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

    প্রধানমন্ত্রী গতকাল ফেনী জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণের ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ভার্চুয়ালি মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সঙ্গে সংযুক্ত হয়ে এই অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। প্রধানমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান খায়রুল বাশারকে শপথবাক্য পাঠ করান। এ সময় এলজিআরডি ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হেলাল উদ্দিন উপস্থিত ছিলেন। ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খায়রুল বাশার গত ১০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত ফেনী জেলা পরিষদের উপনির্বাচনে বিজয়ী হন।

    ‘যে কোনো অর্জনের পেছনেই একটি শক্তি বা সংগঠনের প্রয়োজন হয়,’ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, সেই লক্ষ্য নিয়েই জাতির পিতা এই আওয়ামী লীগকে তিলে তিলে গড়ে তোলেন। তিনি বলেন, সেই সংগঠনের মাধ্যমে দেশের মানুষ জাতির পিতার ডাকে সাড়া দিয়ে সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বিজয় অর্জন করে। কাজেই আমরা বিজয়ী জাতি। আর এই বিজয়ী জাতি হিসেবেই সমগ্র বিশ্বে আমরা মাথা উঁচু করে চলতে চাই। জাতির পিতার আকাক্সক্ষা পূরণ করতে চাই। সে কথা মাথায় রেখেই সব নির্বাচিত প্রতিনিধি সেভাবে কাজ করবেন যেন আমাদের দেশটায় উন্নয়নের যে গতিধারা আমরা সৃষ্টি করেছি সেটা যেন অব্যাহত থাকে।  তিনি বলেন, বাঙালি জাতিকে যেন আর মাথা নিচু করে চলতে না হয়। মাথা উঁচু করেই বিশ্বে যেন বাঙালি জাতি আপন স্থান করে নিতে পারে।

    তাঁর সরকারের সময়ে দারিদ্র্যের হার ৪০ ভাগ থেকে ২০ ভাগে নামিয়ে আনার প্রসঙ্গ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনাভাইরাস যদি না হতো তাহলে জাতির পিতার কাক্সিক্ষত ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত, উন্নত সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার পথে বাংলাদেশ আরও অনেক দূর এগিয়ে যেতে পারত।  তিনি বলেন, ‘চলমান মুজিববর্ষ উদযাপন এবং ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী বাংলাদেশের মানুষের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি সময়। কিন্তু করোনাভাইরাস সবকিছু স্থবির করে দিয়েছে। তারপরও স্বাস্থ্য সুরক্ষাবিধি মেনে সীমিত আকারে আমরা মুজিববর্ষ উদযাপন করে যাচ্ছি।’

    সমগ্র বিশ্বে আজ মহামারী আকারে করোনাভাইরাস দেখা দিয়েছে এবং  কেবল বাংলাদেশই নয়, বিশ্ব অর্থনীতিই আজ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে স্থবির হয়ে পড়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়েছে। তারপরও বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এবং তাঁর সরকার দেশকে এগিয়ে নেওয়ার প্রচেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।’

    শেয়ার করুন

    কমেন্ট করুন

    আরো সংবাদ পড়ুন